সিঁড়ির গোড়ায় দাঁড়িয়ে আছি, লিফটে উঠব। সিনিয়র অফিসারের সাথে দেখা। একসাথেই উঠলাম। চুপ করে আছি, বরাবরের মতই।নীরবতা উনিই ভাঙ্গলেন। জিজ্ঞাসা করলেন – সজল, আপনার জার্মানীর এডমিশনের কি খবর?
বললাম – ক্যান্সেল করে দিয়েছি।
– কেন?
– ফাইনান্সিয়াল প্রব্লেম আছে। তাই শেষ পর্যন্ত হয়ে উঠে নি।
– এত ভাল একটা কোর্সে অফার পেয়েও ছেড়ে দিলেন?
– ফাইনান্সি …
– শোনেন সজল, ফাইনান্সিয়াল প্রব্লেম নেই, এমন মানুষ এক কোটিতে একজনও খুঁজে পাবেন না। যে ১০০ টাকা রোজগার করে তারও ফাইনান্সিয়াল প্রব্লেম আছে; আর যে এক কোটি টাকা রোজগার করে তারও ফাইনান্সিয়াল প্রব্লেম আছে।

লিফটের ঘন্টা বাজলো, আমরা অফিসে ঢুকব। দোড় গোড়ায় দাঁড়িয়ে কিছুক্ষণের জন্য থেমে বললেন – যদ্দুর জানি এখনো আপনার হাতে আরো দুইটা অপশন আছে। Make Sure, ওগুলো যেন নষ্ট না হয়। সুযোগ জীবনে বার-বার আসেনা সজল।

বলেই তিনি ভেতরে ঢুকলেন। আমিও আমার ডেস্কে বসলাম। ইমেইলের মেইলবক্সটা খুলে অনেকক্ষণ তাকিয়ে রইলাম আর ভাবলাম –

বড় চেয়ার এবং ছোট চেয়ারের মানুষগুলোর মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে।